এটি বিশ্বের সবচেয়ে অদ্ভু’ত গাছ, শুধুমাত্র গাছের পাতা র’ক্ষার জন্যই ২৪ ঘন্টা পাহারা দেয় পু’লিশ, এর কারন জানলে আপনি অ'বাক হবেন

এই পৃথিবীর প্রতিটি দেশকে সুরক্ষার জন্য আইনশৃঙ্খলা তৈরি করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ভা'রত হোক বা অন্য যে কোনও দেশ হোক না কেন, প্রতিটি দেশেরই সে দেশের লোকদের সুরক্ষার জন্য নিজস্ব নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন রয়েছে।

প্রায়শই আপনি কিছু বড় বড় সেলিব্রিটি এবং নেতাদের সাথে সুরক্ষার জন্য পোস্ট করা কিছু সুরক্ষা কর্মক'র্তা দেখেছেন তবে আপনি কি কখনও গাছের গাছের সুরক্ষার জন্য সে'না মোতায়েন করতে দেখেছেন? হ্যাঁ, সম্প্রতি ভা'রতীয় সে'নাবাহিনীকে মধ্য প্রদেশের একটি জে'লায় একটি গাছ রক্ষার দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে।

আসলে, মধ্য প্রদেশের রায়সেনের সাঁচি স্তূপের কাছে বৌদ্ধ গাছকে রক্ষার দায়িত্বের কারণে, এখানে প্রতিদিন নিরাপত্তা কর্মীদের রক্ষী রয়েছে। তথ্য অনুসারে, এই বৌদ্ধ গাছটি কোনও কোনও রোগের সাথে লড়াই করছে এবং যদি এটি সুরক্ষা না দেওয়া হয় তবে শীঘ্রই এই গাছটি ধ্বংস হয়ে যাবে। এই ভিআইপি গাছটি গত এক মাস ধরে কৃমি হয়ে গেছে। গাছটি কাটছে এই পোকার নাম ক্যাটার পিলার। যার কারণে দিন দিন এই গাছের পাতা শুকতে শুরু করেছে।

গাছটিকে রক্ষাকারী কর্মক'র্তাদের মতে, যেহেতু গাছটি পোকামাকড় ধরেছে, কোনও কর্মক'র্তা এটি যত্ন নিতে আসেনি। একই সঙ্গে আরেক উদ্যানচালক বিশেষজ্ঞ বলেছেন যে গাছে থাকা এই কী'টপতঙ্গ সেই গাছের জন্য বিপজ্জনক প্রমাণ করতে পারে। যার কারণে এখন সেই গাছে মনোযোগ দেওয়ার বিশেষ প্রয়োজন রয়েছে।

সানচি ও সালামতপুরের মাঝামাঝি রাজপথের একটি ছোট্ট পাহাড়ে সুরক্ষা জালগু'লির মধ্যে একটি মস্তক গর্জন করছে। সাধারণত লোকেরা এটিকে একটি পিপল গাছ হিসাবে বিবেচনা করে তবে এর কঠোর সুরক্ষার দিকে তাকালে তাদের মনে একটি প্রশ্ন ওঠে যে কেন এই গাছটি এত সুরক্ষিত? পু'লিশ জওয়ানরা চারপাশে ঘেরে এবং প্রায় 15 ফুট উচ্চতায় জাল করে। কী' বিশেষ, এই গাছের মধ্যে যারা মহাসড়ক দিয়ে যান, তারা জানেন না যে এই গাছটির বিশেষত্ব কী', কেন এটি এত গুরুত্বপূর্ণ। তারা অবশ্যই অ'বাক।

প্রকৃতপক্ষে, এই গাছটি ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১২ তারিখে শ্রীলঙ্কার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি মহিন্দা রাজা'পাকসা এবং মধ্য প্রদেশের সিএম শি'বরাজ সিং চৌহান মধ্য প্রদেশের বিশ্ব পর্যটন কেন্দ্র সাঁচির কাছে বৌদ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবিত পাহাড়ে কয়েক ডজন দেশের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে রোপণ করেছিলেন। তথ্য অনুসারে, শ্রীলঙ্কায় যে গাছের অধীনে ভগবান বুদ্ধ জ্ঞান অর্জন করেছিলেন তার একটি শাখা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। যার পরে শাখাটি মধ্য প্রদেশ থেকে আনা হয়েছিল এবং মধ্য প্রদেশে স্থাপন করা হয়েছিল।

একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মধ্যপ্রদেশ সরকার এই গাছটিকে রক্ষায় প্রতি মাসে প্রায় এক লাখ টাকা ব্যয় করছে। বর্তমানে এই গাছের জন্য সরকার ব্যয় করেছে ৫ লক্ষ টাকা। এই গাছের সুরক্ষার জন্য, দিনরাত ৪ জন সৈন্য সেখানে অবস্থান করছেন। এছাড়াও, সেখানে সিটি কাউন্সিল সাঁচি থেকে একটি জলের ট্যাঙ্কার প্রেরণ করা হয়। যদিও মধ্যপ্রদেশ সরকারের নজর সর্বদা এই গাছে থাকে, তবুও সেখানকার কর্তৃপক্ষগু'লি বিপজ্জনক পোকার হাত থেকে বাঁ'চাতে পারেনি।

একই জে'লা উদ্যানতত্ত্ব কর্মক'র্তা এমএস তোমা'র জানান, তিনি এই রোগগু'লির প্রকোপ স'ম্পর্কে কোনও তথ্য পাননি। তোমা'র বলেছিলেন যে তিনি শীঘ্রই একজন কর্মীকে প্রেরণ করবেন গাছের পরীক্ষা করতে এবং তার উপর সঠিক ওষুধ স্প্রে করার জন্য।

Back to top button