অনিরাপদ মনে করেছি তাই মেজর সিনহাকে গু’লি; দাবি লিয়াকতের

কোন পরিস্থিতিতে কী' কারণে সাবেক মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানকে গু’লি করা হয়েছিল তা নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা করছে মা’মলার ত'দন্ত সংস্থা র‌্যা'­ব। এটা কী' পরিক'ল্পিত নাকি তাৎক্ষণিক হ’ত্যা, সেটা নিয়েও চুলচেরা বিশ্নেষণ করা হচ্ছে।

সিনহার নিহ’তের ঘটনায় করা মা’মলায় এখন তিন প্রধান আ’সামি সাবেক ওসি প্রদীপ কুমা'র দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও উপপরিদর্শক নন্দ দুলাল রক্ষিতকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে র‌্যা'­ব। লিয়াকতের কাছে জানতে চাওয়া হয়, কেন চেকপোস্টে গু’লি করার মতো পরিস্থিতি তৈরি হলো?

জবাবে লিয়াকত দাবি করেছেন, তিন সোর্স তাকে জানিয়েছেন, যারা গাড়িতে আসছেন তারা ডা’কাত। এটা বিশ্বা'সও করেছিলেন তিনি। ঘটনার সময় নিজেকে অনিরাপদ মনে করেন লিয়াকত। এ কারণে আগেই গু’লি ছু’ড়ে দেন। পরে বুঝতে পারে সোর্স তাকে মিসগাইড করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি তিন সোর্স নুরুল আমিন, মো. নাজিমুদ্দিন ও মোহাম্ম'দ আয়াজের ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছেন।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। একজন দায়িত্বশীল কর্মক'র্তা জানান, লিয়াকত দা’বি করেছেন, তিন সোর্সের কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার পর এসআই নন্দ দুলালকে নিয়ে দ্রুত এপিবিএনের চেকপোস্টে চলে আসেন তিনি। নন্দ দুলালের মোটরসাইকেলে সিভিল ড্রেসে তারা এসেছিলেন। এদিকে সিনহা হ’ত্যা মা’মলায় কা’রাগারে থাকা আ’র্মড পু'লিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে সাত দিনের রি’মান্ডের জন্য গতকাল শনিবার হেফাজতে নিয়েছে র‌্যা'­ব।

এপিবিএনের সদস্যরা পরিচয় পেয়ে সিনহার গাড়ি ছেড়ে দিলেও চেকপোস্টের শেষ মা'থায় ড্রাম ফেলে তা আ'ট'কে দেন লিয়াকত। এরপর ঘটে সেই অ’নাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। গু’লি করার ব্যা’খ্যায় কিছুটা এলোমেলো তথ্য দিচ্ছেন লিয়াকত।

কখনও কখনও বলছেন, তার মনে হয়েছে অ'পর পাশ থেকে এক রাউন্ড গু'লি ছোড়া হয়েছে। আবার বলছেন, মনে হয়েছে যে কোনো সময় তাদের ওপর গু’লি করা হতে পারে। এটাও বলেছেন, ডা’কাতের কাছে অ’স্ত্র থাকতে পারে- এমন আশ’ঙ্কা ছিল তার। বলছেন, অ’স্ত্র তার দিকে তা’ক করা হয়েছিল। পুরো ঘটনাটি নিয়ে তার বোঝার ভুল ছিল বলে দা’বি করেন লিয়াকত। এমনও বলছেন, এজাহারে যে বক্তব্য রয়েছে, সেটাই তার কথা।

তবে ত'দন্ত-সংশ্নিষ্টরা বলছেন, এমন কী' ঘটেছে ১-২ মিনিটের মধ্যে গু’লি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন লিয়াকত। আর অ্যালিয়ন গাড়িতে ডা'কাত চলাফেরা করার কথা নয়। ওই গাড়িতে মা’দক পা’চার হচ্ছে বললেও হয়তো বাস্তবতার সঙ্গে মিলত। ঘটনা নিয়ে প্রদীপ, লিয়াকত ও নন্দ দুলালের বক্তব্যে অনেক ফাঁকফোকর রয়েছে। ত'দন্ত-সংশ্নিষ্টরা বলছেন, ঘটনাস্থলে তাদের নিয়ে গিয়ে কিছু প্রশ্নের উত্তর মেলানোর চেষ্টা করা হয়েছে। আরও অনেক প্রত্যক্ষদর্শীকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এদিকে মা’মলার এ’জাহারে পু'লিশ দা’বি করেছিল, মেজর পরিচয় দেওয়া ব্যক্তি গু’লি করতে উ’দ্যত হলে ৪ রাউন্ড গু’লি করে করেন লিয়াকত। সূত্র জানায়, ঘটনার দিন রাত ৯টা ২৯ মিনিটের দিকে গু’লির ঘটনা ঘটেছে। এরপর লিয়াকত ফোন করেন ওসি প্রদীপ কুমা'র দাশকে। ১০টা ৫ মিনিটের দিকে প্রদীপ ঘটনাস্থলে আসেন। এরপর এখানে-সেখানে ফোন করেন। ঘটনাস্থল থেকে থা'নার যে দূরত্ব তাতে ওই সময়ের মধ্যে গাড়িতে কারও সেখানে পৌঁছা সম্ভব যদি তিনি ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গেই রওনা দেন। গু'লির পরই ওসির সঙ্গে লিয়াকতের ফোনালাপ হয়। গু'লির আগে ফোনালাপের কোনো তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি।

একটি সূত্র জানায়, গু’লি করার পর পানি ও অক্সিজেন চান সিনহা। তাকে তা দেওয়া হয়নি। চিকিৎসা ছাড়া কেন ৫৫ মিনিট তাকে রাখা হয়েছিল, তা জানার চেষ্টা করছেন তদ’ন্তকারীরা। প্রদীপ দা’বি করছেন, গাড়ি আসার পর পরই সিনহাকে হাসপাতা'লে নেওয়া হয়েছে। এদিকে লিয়াকত যে অ’স্ত্র দিয়ে সিনহাকে গু’লি করেছিলেন, সেটি আসলে কার তা নিয়ে তদ’ন্ত চলছে। একটি সূত্র বলছে, ৯ এমএমের ওই পি’স্তলটি লিয়াকতের নয়। সেটি নন্দ দুলালের। যে অ’স্ত্র থেকে গু’লি করা হয়েছে, তা ত'দন্ত কর্মক'র্তাকে প্রদান করতে আ'দালত আদেশ দিয়েছেন। গতকাল অ’স্ত্রটি ত'দন্ত কর্মক'র্তা তার হেফাজতে নিয়েছেন। এ অ’স্ত্রটি এখন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা হবে। ত'দন্ত-সংশ্নিষ্ট সূত্র বলছে, চেকপোস্টে হঠাৎ করেই গু’লির মতো ঘটনা সাধারণত ঘটে না। আগে বাদানুবাদ হতে পারে। ধ’স্তাধস্তি হতে পারে। শেষ ধাপে গু’লির ঘটনা ঘটতে পারে। চূড়ান্ত যৌক্তিক মনে হলেই গু’লি ছোড়া হয়। সিসিটিভি থাকলে পুরো বিষয়টি পরিস্কার হতো। তবে মেরিন ড্রাইভে এপিবিএনের চেকপোস্টে পৌঁছার আগেই বিজিবির চেকপোস্ট পার হয়ে আসেন সিনহা। সেখানে তিনি নিজের পরিচয় দেওয়ার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। সিনহার আচরণ ছিল স্বাভাবিক। ধীরস্থিরভাবেই গাড়ি চালাচ্ছিলেন। সূত্রঃ দৈনিক সমকাল

Back to top button