একসঙ্গে গাইলেন বাবা-ছে'লে, ভাসছেন প্রশংসায়

সারাবছরই খুব ব্যস্ত সময় পার করেন ছোট পর্দার সুপারস্টার জিয়াউল ফারুক অ'পূর্ব। মাসের প্রায় ত্রিশ দিনই শুটিং করতে দেখা যায় তাকে। শত ব্যস্ততার মধ্যেও একমাত্র ছে'লে জায়ান ফারুক আয়াশকে সময় দিতে ভুলেন না বাবা অ'পূর্ব।

যখনই একটু সময় পান তখনই ছে'লেকে নিয়ে ঘুরতে বের হয়ে যান তিনি।বাইরে বের হওয়ার মতো সুযোগ করতে না পারলে নিজ বাসাতেই একান্তে আনন্দঘন সময় পার করেন ছে'লের সাথে। প্রায় সময়ই আয়াশের সঙ্গে নানা মুহূর্তের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেন অ'পূর্ব। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তবে এবার আর ছবি নয়, শেয়ার করলেন একটি ভিডিও।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বাবা-ছে'লে দুইজনেই সুরে সুর মিলিয়ে গান ধরেছেন কণ্ঠে। গাইছেন তাদের প্রিয় গান ‘ওরে নীল দরিয়া’। বাবার সঙ্গে বেশ দরদ দিয়ে গাইছেন ছে'লে আয়াশ। সুন্দর এই মুহূর্তটি নিজের ফেসবুক পেইজে শেয়ার করেছেন অ'পূর্ব এবং মুহূর্তেই তা ভাই'রাল হয়ে যায়। মন্তব্যের ঘরে ভাসছে নানারকম প্রশংসা।

আয়াশের প্রশংসা করে একজন মন্তব্যের ঘরে লিখেছেন, আয়াশ বেবিটা, একটা কিউটিপাই! আরও একজন লিখেন, বাবা-ছে'লের অসাধারণ গায়কী'! অন্য আরেকজন লিখেন, ওলে বাবা লে, কি কিউট আয়াশ সোনাটা! এই গানটা তোমা'র গলায় ভীষণ প্রিয় অ'পূর্ব স্যার।

একজন লিখেন, গান তো অসাধারণ অবশ্যই আর ভাইয়ের গলায়। এই গান আরও অসাধারণ লাগে কিন্তু আজ থেকে জানলাম ভাইয়ের থেকে তুতুস সোনার গলায় এটা আরও বেশি অসাধারণ লাগছে। এতো মিষ্টি করে গাইতে পারে তুতুস জানতাম না তো…অনেক অনেক আদর তুতুস সোনার জন্য।জিয়াউল ফারুক অ'পূর্ব বলেন, ‘আমা'র অবসর সময়টা কাটে আমা'র ছে'লের সঙ্গে।

আয়াশের সঙ্গে কা'টানো মুহূর্তটা আমা'র সবচেয়ে বেশি প্রিয়। আর অবসর সময়ে বাবা-ছে'লে দুজনেই গান গাইতে পছন্দ করি। ‘ওরে নীল দরিয়া’ গানটা আমা'র পাশাপাশি আয়াশেরও ভীষণ পছন্দের। দুজনের সবচেয়ে প্রিয় গান এটি। যার কারণে প্রায় সময়েই এই গানটি গাওয়ার চেষ্টা করি।’প্রসঙ্গত, এরইমধ্যে নতুন বছরের কাজ শুরু করে দিয়েছেন অ'পূর্ব। এখন তিনি ব্যস্ত রয়েছেন ভালোবাসা দিবসের বিশেষ নাট'কের শুটিং নিয়ে।

Back to top button