স্বামীকে চতুর্থ বিয়ে করাতে পাত্রী খুঁজছেন তিন স্ত্রী'

বর্তমান জামানার আইন বেশ কড়া। প্রথম স্ত্রী'র অনুমতি না নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করা যায় না। সবচেয়ে বড় কথা হলো-স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ের প্রয়োজন হলেও প্রথম স্ত্রী' সঙ্গতকারণেই অনুমতি দিতে চান না।

সেখানে কি-না স্বামীর চতুর্থ বিয়ের আয়োজনে পাত্রী খুঁজে দিচ্ছেন তার তিন স্ত্রী'! শুনতে অবিশ্বা'স্য মনে হলেও এমন অ'বাক করার ঘটনা ঘটছে যাচ্ছে পা'কিস্তানে। সংবাদমাধ্যমের খবরে প্রকাশ পেয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম আদনান। তিনি শিয়ালকোটের বাসিন্দা। মাত্র ১৬ বছর বয়সে ছাত্রাবস্থাতেই প্রথম বিয়ে হয় তার। প্রথম স্ত্রী' সম্বলের সঙ্গে বেশ সুখেই দিন কাটছিল।

তা সত্ত্বেও চার বছর কাটতে না কাটতেই দ্বিতীয় বিয়ের কথা ভাবেন তিনি। যেমন ভাবনা তেমনই কাজ। দ্বিতীয়বার বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তিনি। বাড়িতে নিয়ে আসেন শাবানাকে।গত বছর তৃতীয় বিয়ে সেরেছেন পা'কিস্তানি এই যুবক। শাহিদা নামের এক নারী হয়েছেন তার তৃতীয় স্ত্রী'। বর্তমানে পাঁচ সন্তানের বাবা আদনান। প্রথম স্ত্রী'র তিনটি, দ্বিতীয় স্ত্রী'র নিজের বলতে একটিই সন্তান।

তবে দ্বিতীয় স্ত্রী'র সঙ্গে আলোচনা করে একটি সন্তান দত্তকও নিয়েছেন আদনান। তৃতীয় স্ত্রী'র কোনো সন্তান নেই। এবার পালা চতুর্থ বিয়ের। তবে আদনানের একটাই শর্ত-চতুর্থ স্ত্রী'র নামের আদ্যক্ষর হতে হবে ‘স’ বা ‘শ’। এটা বাদে পাত্রী দেখার ক্ষেত্রে আর কোনো পছন্দ-অ'পছন্দ নেই পাঁচ সন্তানের বাবা আদনানের।তবে সবচেয়ে অ'বাক করার বিষয় হলো-আদনানের চতুর্থ স্ত্রী' খুঁজে দেয়ার দায়িত্বটা নিয়েছেন তার তিন স্ত্রী'। তারাই নাকি স্বামীর মন বুঝে পছন্দমতো হবু বউ খোঁজার চেষ্টা করছেন।

পা'কিস্তানি দৈনিক ডেইলি পা'কিস্তানকে আদনান বলেছেন, তার তিন স্ত্রী' থাকলেও দাম্পত্য জীবনে তিনি সুখী। কারোর প্রতি কারোর অ'ভিযোগ নেই। তার বাড়িতে রয়েছে ছয়টি বেডরুম। পালাক্রমে স্ত্রী'দের সময় দেন।

তিন স্ত্রী' কাজও ভাগ করে নিয়েছেন নিজেদের মধ্যে। একজন স্ত্রী' রান্নার দায়িত্বটা নিয়েছেন। আরেকজন করেন ধোয়ামোছার কাজ। অ'পরজন স্বামীর জুতা পলিশ করে দেন।তিন স্ত্রী' নিয়ে সুখে-শান্তিতে থাকলেও খরচ কিন্তু কম হয় না আদনানের। এজন্য প্রতি মাসে তার হাত থেকে চলে যায় অর্ধলাখ রুপি। তবে খরচকে পরোয়া করেন না আদনান। তার দাবি, প্রথম বিয়ের পর থেকে থেকেই নাকি তার কপাল খুলতে শুরু করেছে।

সূত্র : গালফ নিউজ, ডেইলি পা'কিস্তান

Back to top button