দেয়া হবে টাকা, দুই দিনের মধ্যে তথ্য চেয়ে নির্দেশনা

এসএসসি পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে বৃত্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তথ্য এমআই'এস সফটওয়্যার অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

আগামী সোমবারের (১৮ জানুয়ারি) মধ্যে শিক্ষার্থীদের তথ্য সফটওয়্যারে এন্ট্রি করানোর জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধান ও মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মক'র্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।শনিবার (১৬ জানুয়ারি) মাউশি থেকে এ সংক্রান্ত বিষয়ে তাগাদা দিয়ে বলা হয়, গত ৫ জানুয়ারি থেকে ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে বৃত্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তথ্য এমআই'এস সফটওয়্যারে অন্তর্ভুক্ত করা শুরু হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের বৃত্তির টাকা পাওয়ার ভোগান্তি কমাতে সরাসরি জিটুপি এর আওতায় অনলাইনে ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে বৃত্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের গেজেট প্রকাশ করেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। জিটুপি পদ্ধতিতে ইএফটির মাধ্যমে সরাসরি শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠাতে এমআই'এস সফটওয়্যারে বৃত্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তথ্য এন্ট্রি করতে মাঠপর্যায়ের কর্মক'র্তা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বলা হয়েছে।

এমআই'এস সফটওয়্যারে তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থী নিয়মিত ও ধারাবাহিকভাবে অধ্যয়নরত রয়েছে তা নিশ্চিত হয়ে তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে বলা হয়েছে। পাঠ বিরতিতে আছে এমন শিক্ষার্থীদের তথ্য অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না। মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের তথ্য এন্ট্রি করা যাবে না। এসব শিক্ষার্থী কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে বৃত্তির টাকা পাবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, অনলাইন সুবিধা সম্পন্ন তফসিলভুক্ত ব্যাংকে শিক্ষার্থীদের নিজ নামে বা ১৮ বছরের নিচে হলে বাবা-মায়ের সাথে যৌথ নামে বা স্কুল ব্যাংক হিসাব খুলতে হবে। যৌথ নামে ব্যাংক হিসাব বা স্কুল ব্যাংক হিসাব খোলা হলে এমআই'এসে তথ্য এন্ট্রির ক্ষেত্রে যৌথ নাম অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে। শিক্ষার্থীর একক বা যৌথ নামের অ্যাকাউন্ট ছাড়া বাবা-মা বা অন্য কোন অ'ভিভাবকের ব্যাংক হিসাব দেওয়া যাবে না। অনলাইন ব্যাংক হিসাব নম্বর অবশ্যই ১৩ থেকে ১৭ ডিজিটের মধ্যে হতে হবে। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর নির্ভুলভাবে পূরণ করতে হবে। কোন এজেন্ট ব্যাংকের হিসাব নম্বর দেওয়া যাবে না।

এছাড়া শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন নম্বর, পরীক্ষার নাম, বছর, বৃত্তির ক্যাটাগরি, ব্যাংকের নাম, ব্যাংকের শাখার নাম সঠিকভাবে পূরণ করতে নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।তথ্য পাঠানো ক্ষেত্রে ভুল হলে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কর্মক'র্তারা দায়ী থাকবেন বলে বলেছে শিক্ষা অধিদপ্তর। ৫ জানুয়ারি থেকে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠানো সুযোগ পাবেন প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কর্মক'র্তারা। নির্ধারিত ওয়েবসাইটে ইউজার নেইম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

Back to top button