ঘরে বসে বই দেখে পরীক্ষা, তবু সবাই ফেল!

বাড়িতে বসে পরীক্ষা। হাতে প্রশ্নপত্র। ইচ্ছে করলে বই দেখে বা ইন্টারনেটের সাহায্য নিয়েও উত্তর দেওয়া যেতে পারে। সবাই সেটাই করেছিলেন। তবু সেই পরীক্ষার ফল দেখে কার্যত আকাশ থেকে পড়েছেন পরীক্ষার্থীরা। পরীক্ষায় এক জনও পাশ করতে পারেননি!

এমনই অ'বাক কা'ণ্ড ঘটেছে ভা'রতের মালদহের শোভানগর ডিএলএড কলেজে। সত্যিই সবাই ফেল করেছেন, নাকি প্রযু'ক্তিগত কোনও ত্রুটি, খতিয়ে দেখছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। করো'না সংক্রমণের জেরে ২০১৮-২০ শিক্ষাবর্ষে অনলাইনে ওপেন বুক পদ্ধতিতে পরীক্ষা হয়েছিল জে'লার একমাত্র সরকারি প্রাথমিক শিক্ষণ কলেজে। ১৪ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছিল সেই পরীক্ষা।

এক্সটার্নালে ৩১০ এবং ইন্টারনালে ৩৯০ মিলিয়ে মোট ৭০০ নম্বরের পরীক্ষা হয়। তাতে বই দেখে বা ইন্টারনেট ঘেঁটে উত্তর দেওয়ার বিকল্প ছিল। কর্তৃপক্ষেরও তাতে কোনও সমস্যা ছিল না। পরীক্ষা শেষে উত্তরপত্র নির্দিষ্ট লিঙ্কে আপলোড করেছিলেন পরীক্ষার্থীরা। কিন্তু শুক্রবার পরীক্ষার ফল বেরোতে দেখা গিয়েছে, ১০০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে কেউ পাশ করতে পারেননি।

কোন বিষয়ে কে কত নম্বর পেয়েছেন, অনলাইনে প্রকাশিত ফলে সেটা জানানো হয় না। মা'র্কশিট পাওয়ার পর বিষয়টি আরও স্পষ্ট হবে। পরীক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, কলেজের নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে তারা নির্দিষ্ট জায়গায় উত্তরপত্র আপলোড করেছিলেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্র বলেন, নিয়ম মেনে সব করার পরও ফেল করায় অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছি।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য শীঘ্রই টেট পরীক্ষা হতে পারে। কিন্তু এই রকম অসম্পূর্ণ রেজাল্ট হলে কী' করে পরীক্ষায় বসব। কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কোনও রকম সাহায্য পাচ্ছেন না বলেও অ'ভিযোগ পড়ুয়াদের একাংশের। যদিও বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বা'স দিয়েছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ।
কলেজর অধ্যক্ষ মিলন সাহা বলেন, প্রযু'ক্তিগত কোনও ত্রুটি হতে পারে। পর্ষদকে বিষয়টি জানিয়েছি। আশা করি কয়েক দিনের মধ্যেই সমস্যা মিটে যাবে। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Back to top button