২০ হাজার প্রাথমিক স্কুলের জন্য নতুন যে সিদ্ধান্ত

দেশের যে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় চার তলার জন্য অনুমোদন করা হয়েছে কিন্তু দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে, এমন বিদ্যালয় সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এ সকল বিদ্যালয়ের জমির দলিল, নকশা, ভবন স্থাপনার অনুমোদন সংরক্ষণ করে তা আর্কাইভে (সংরক্ষণাগার) রাখা হবে।

জানা যায়, সারাদেশে ৬৫ হাজার ৬৫৬টি সরকারি বিদ্যালয়ের মধ্যে এমন বিদ্যালয়ের সংখ্যা ২০ হাজারেরও বেশি।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্র বলছে, আর্কাইভ তৈরির পর দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের দলিলপত্র সংগ্রহ করে তা সংরক্ষণ করা হবে। সেটি ডিপিই’র ওয়েবসাইটে রাখা হবে। ভবন সম্প্রসারণ বা নতুন করে ভবন তৈরির সময় অনলাইনের মাধ্যমে ওয়েবসাইট থেকে ওই দলিলপত্র সংগ্রহ করা হবে।

এ বিষয়ে ডিপিই’র মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন, ‘দেশের অনেক জে'লার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চার তলা ফাউন্ডেশন অনুমোদন থাকলেও সেখানে দোতলা ভবন করে পাঠদান পরিচালনা করা হচ্ছে। সেসব ভবন চার তলা করতে চাইলেও প্রয়োজনীয় দলিলপত্র খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এসব স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করতে একটি আর্কাইভ তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন করে একটি ভবন নির্মাণ করতে গেলে অনেক অর্থ ও সময় ব্যয় হয়ে থাকে বিধায় পুরনো ভবনগুলো সম্প্রসারণ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ কারণে প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র অনুসন্ধান করা হচ্ছে। কাগজ পাওয়ার পর সেসব ভবন চার তলা করা হবে।’

Back to top button