করো'নায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃ'ত্যু দেখলো বিশ্ব

গত বছরের জানুয়ারিতে প্রথম মৃ'ত্যুর পর দিন দিন মৃ'ত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। করো'নাভাই'রাস মহামা'রির প্রকোপ গ্রীষ্মে কিছুটা কমলেও শীত আসতেই তা আবার হুহু করে বেড়েই চলেছে।

গত একদিনে করো'নায় মৃ'ত্যু হয়েছে সাড়ে ১৭ হাজারের বেশি মানুষের, আ'ক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৭ লাখ।গত একদিনে মৃ'ত্যু হয়েছে ১‌৭ হাজার ২৯৯ জনের এবং আ'ক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ৭১ হাজার ১৯৮ জন। একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন সাড়ে ৫ লাখ ৬১ হাজারের বেশি মানুষ।

করো'নাভাই'রাস মহামা'রির শুরু থেকে বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চলের করো'না সংক্রমণের হালনাগাদ তথ্য সংরক্ষণ করছে ওয়ার্ল্ডোমিটারস নামের একটি ওয়েবসাইট। তাদের সর্বশেষ তথ্য বলছে, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করো'নায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৭৩ লাখ ৫ হাজার ৩৫৬ জন, মোট মা'রা গেছেন ২০ লাখ ৮৩ হাজার ২০৩ জন।

বিশ্বে করো'নায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যু'ক্তরাষ্ট্র। যু'ক্তরাষ্ট্রে করো'নায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ৪৯ লাখ ৯৮ হাজার ৯৭৫ জন। দেশটিতে করো'নায় মা'রা গেছেন ৪ লাখ ১৫ হাজার ৮৯৪ জন।ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ভা'রতের অবস্থান দ্বিতীয়। ভা'রতে করো'নায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৬ লাখ ১১ হাজার ৭১৯ জন। দেশটিতে করো'নায় মা'রা গেছেন ১ লাখ ৫২ হাজার ৯০৬ জন।

ব্রাজিল আছে তৃতীয় অবস্থানে। ব্রাজিলে করো'নায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৮৬ লাখ ৩৯ হাজার ৮৬৮ জন। দেশটিতে করো'নায় মা'রা গেছেন ২ লাখ ১২ হাজার ৮৯৩ জন। তালিকায় রাশিয়ার অবস্থান চতুর্থ। ফ্রান্স পঞ্চ'ম। যু'ক্তরাজ্য ষষ্ঠ। তুরস্ক সপ্তম। ইতালি অষ্টম। স্পেন নবম। জার্মানি দশম। তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করো'নাভাই'রাস শনাক্ত হয়। চীনে করো'নায় প্রথম কোনো রোগীর মৃ'ত্যু হয় চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করো'না রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করো'না ছড়িয়ে পড়ে।

Back to top button