সুখবরঃ নতুন বছরের শুরুতে কমলো স্বর্ণের দাম দেখেনিন সর্বশেষ অবস্থা!

করো'নার প্রকোপে কে'টে গেছে গোটা একটি বছর। ২০২০ সালের একদম শুরুর দিকে বিশ্বে করো'নার প্রকোপ খুব একটা না থাকলেও মা'র্চের দিকে এসে ভ'য়াবহ রূপ ধারন করে এই প্রা'ণঘাতী কোভিড-১৯। সময় যত গড়িয়েছে এর প্রকোপ কেবল বাড়তির দিকেই ছিল।

করো'নার এই প্রভাব পড়েছে গোটা বিশ্বের সকল খাতেই। ব্যাবসা-বাণিজ্য, কল-কারখানা কিংবা অর্থনৈতিক সকল খাতেই এর প্রভাব ছিল স্পষ্ট। দীর্ঘ সময় লকডাউন চলার ফলে অর্থনীতির চাকা ছিল থমকে।

এদিকে করো'নার এই দুঃসময় পার করে বিশ্বের অর্থনীতি চাঙ্গা হতে শুরুর করেছে বেশ কিছুদিন হল। তবে করো'নার ক্ষতি পোষাতে গিয়ে কিছুটা বাড়তি প্রভাব লক্ষ্য করা গেছে সোনা ও রুপার বাজারে। মূল্যবান এই ধাতবের দাম করো'নার শুরুর দিকে কিছুটা কমতি থাকলেও পরবর্তীতে এক লাফে প্রায় দিগুণ হতে দেখা গেছে।

সোনার দরের এই প্রভাব দেশের বাজারেও ছিল স্পষ্ট। জুলাই-আগস্ট মাসের দিকে দেশের বাজারেও তড়তড় করে বেড়েছিল সোনার দর। ৭০ থেকে ৭৫ হাজার টাকায় হাতবদল হতে দেখা গেছে এক ভরি সোনা। তবে স্বর্ণের সেই মূল্যবৃদ্ধি খানিকটা কমতে দেখা গিয়েছিল মা'র্কিন নির্বাচনকে ঘিরে।

বিশ্বের প্রভাবশালী দেশটির নির্বাচনকে সামনে রেখে লগ্নিকারীরা সোনার পেছনে পয়সা খরচ করেছেন কিছুটা দেখেশুনে। ফলে দামও কিছুটা পড়ে গিয়েছিল। যদিও দাম কমা'র সেই মাত্রা ছিল খুবই কম।বিশ্ববাজারের সাথে তাল মিলিয়ে দেশের বাজারেও কমেছিল স্বর্ণের দাম। বছরের শেষের দিকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশের বাজারে প্রতি ভরি সোনার দাম কমেছিল ২ হাজার ৫০৭ টাকা।

বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির (বাজুস) তরফ থেকে সর্বশেষ (১ ডিসেম্বর ২০২০) বেধে দেয়া দাম অনুযায়ী দেশের বাজারে প্রতি ভরি সোনা বিক্রি হচ্ছে ৭২ হাজার ৬৬৭ টাকায়।

নতুন বছরে এসে সোনার দাম আবারও ইছুটা কমতে পারে বলে ধারনা করছেন বাজার বিশ্লেষকরা। মূলত ডলারের মূল্য পড়তির দিকেই রয়েছে বেশ কিছুদিন ধরে। পাশাপাশি বিশ্ববাজারে তেলের দামও পড়তির দিকে থাকায় সোনার মূল্য কিছুটা কমতে পারে। যদিও সেটা আগের অবস্থানে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

Back to top button