অবশেষে পাওয়া গেলো তাকে , যার শরীর থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়েছে করো'না

মহামা'রি করো'না ভাই'রাসে আ'ক্রান্ত ১৯৯টি দেশ। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের ৭ লাখ ৫২ হাজার ৭৪৭ জন মানুষ করো'নায় আ'ক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মৃ'ত্যু বরণ করেছেন ৩৬ হাজার ২২৬ জন মানুষ। বিজ্ঞানীরা ধারনা করছেন চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে ছড়িয়েছে এই ভাই'রাস।

এক্ষেত্রে তারা হন্যে হয়ে খুঁজছিলেন সেই রোগীকে করো'না ভাই'রাসে আ'ক্রান্ত প্রথম রোগীকে। তারা মনে করেন ‘পেশেন্ট জিরো’ রোগীকে ভালভাবে পরীক্ষা করলে প্রতিরোধের উপায় এবং ভ্যাকসিন বের করা সহ'জ হবে। অবশেষে মিলেছে সেই পেশেন্ট জিরো রোগী।

ইন্ডিয়া টাইমস জানায়, প্রথম করো'নায় আ'ক্রান্ত হচ্ছে ৬৭ বছর বয়সী এক চীনা মহিলা। নাম ওয়েই গুইশিয়ান। তিনি চীনের উহান শহরের বাজারে চিংড়ি মাছ বিক্রি করতেন। এদিকে মা'র্কিন গণমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানায়, ওয়েই গুইশিয়ান গত বছরে ১০ ডিসেম্বর হুনান সি ফুড মা'র্কে'টে চিংড়ি বিক্রির সময় অ'সুস্থ হয়েছে পরেন।

প্রথমে ফ্লুয়ের মতো উপসর্গ নিয়ে স্থানীয় হাসপাতা'লে যান ওয়েই। প্রথমে তাঁকে একটি ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়। কিন্তু দিনের পর দিন ক্রমশ দুর্বল হতে থাকেন গুইশিয়ান। দিন দুয়েক পরই উহানের ইলেভন্থ হাসপাতা'লে যান। সেখানেও ধ'রা পড়েনি এই মা'রণ ভাই'রাস। ১৬ ডিসেম্বর ওই অঞ্চলে সবচেয়ে বড় উহান ইউনিয়ন হাসপাতা'লে চিকিৎসার জন্য যান গুইশিয়ান। আর সেই হাসপাতা'লেই তাঁকে বলা হয় যে, শরীরে কঠিন রোগ বাসা বাঁধছে।

এরপরই ওই হাসপাতা'লে বাড়তে থাকে রোগীর সংখ্যা, যাদের সবার শরীরেই একই ধরনের উপসর্গ। গুইশিয়ানের দেখাদেখি ওই হাসপাতা'লে ছোটেন হুনান মা'র্কে'টের আরও অনেক মানুষ। এমনকি অনেক ক্রেতাও আ'ক্রান্ত হয়ে পড়েন ওই রোগে।ডিসেম্বরের শেষের দিকে ওয়েই গুইশিয়ানকে কোয়ারানটাইনে রাখা হয়। তাঁর শরীরে মেলে COVID-19 ভাই'রাসের উপস্থিতি মেলে। সে সময় ডাক্তারদের ধারণা, উহানের ওই সামুদ্রিক খাবার বিক্রির মা'র্কেট থেকেই ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাই'রাস।

চীনের চিকিৎসকরা উহানের ওই মা'র্কে'টের টয়লেট ব্যবহার করাতেই তাঁর শরীরে এই ভাই'রাস সংক্রামিত হয়। সেখান থেকেই তার শরীরে করো'নাভাই'রাসের সংক্রমণ হয়েছে।উহান মিউনিসিপ্যাল হেলথ কমিশনের তরফে নিশ্চিত করে বলা হয়েছে যে, প্রথম করো'না ভাই'রাসে আ'ক্রান্ত হয়েছিলেন যে ২৭ জন রোগী তাঁদের মধ্যে প্রথমেই ছিলেন ওয়েই গুইশিয়ান।

Back to top button