কাতারে বিমানবন্দরে আ'ট'কে আছেন তিন বাংলাদেশি

কাতারের দোহা বিমানবন্দরে আ'ট'কে রয়েছেন মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া (৫৯), তার স্ত্রী' রাফিজা আফরোজ (৪৮) ও আরেক নারী রায়হানা বেগম (৬৩) নামে তিন বাংলাদেশি।

আজ মঙ্গলবার একটি ভিডিও বার্তায় মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া জানান তাদেরকে গতকাল বিকেল থেকে বিমানবন্দরে বসিয়ে রাখা হয়েছে।

মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া জানান, সুইডেনে থাকা মেয়েকে দেখার জন্য গত ২০ ফেব্রুয়ারি সেখানে যান তিনি। ১৬ মা'র্চ তারা দেশে ফেরার টিকিট কাটেন কাতার এয়ারওয়েজে।

তিনি বলেন, ‘গত শনিবার বাংলাদেশ সরকার ইউরোপের সব দেশ থেকে আকাশপথে যাত্রী আসায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে—এমন তথ্য জানার পর আমি এয়ারওয়েজের সঙ্গে যোগাযোগ করি। কাতার এয়ারওয়েজ আমাদের জানায়, তারা আমাদের ঢাকায় পৌঁছে দিতে পারবে। গতকাল সোমবার সকাল ৮টা ৫ মিনিটে আম'রা স্ট'কহোম বিমানবন্দর থেকে কাতার এয়ারওয়েজের কিউআর ১৭০ ফ্লাইটে উঠি। স্ট'কহোম এয়ারপোর্ট থেকে আমাদের স্ট'কহোম-কাতার এবং কাতার-ঢাকা দুটি বোর্ডিং পাসই দেওয়া হয়। কাতার থেকে ঢাকায় আসার জন্য দোহা বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় ৬টা ৫ মিনিটে আমাদের কিউআর ৬৩৮ ফ্লাইটে আসার কথা ছিল। এই বোর্ডিং পাস পেয়ে আম'রা নিশ্চিত হই আম'রা ঢাকায় পৌঁছাব। পরে কাতার সময় বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে কাতারের দোহা বিমানবন্দরে কিউআর ১৭০ ফ্লাইটটি পৌঁছায়। ফ্লাইটটিতে আম'রা তিন বাংলাদেশিসহ ১১ থেকে ১২ জন যাত্রী ছিলেন। দোহায় পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গে আমাদের জানানো হয়, আপনাদের ঢাকায় নেওয়া হবে না। সুইডেনে ফেরত যেতে হবে। আম'রা জানাই আমাদের সুইডেনের ট্রাভেল ভিসা শেষ। এ কথা জানার পর তারা আমাদের পাসপোর্ট নিয়ে নেয়। ২০ ঘণ্টা পার হলেও এখনো আমাদের পাসপোর্ট ফেরত দেয়নি তারা।’

মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘গতকাল বিকেল চারটা থেকে এখন পর্যন্ত আমাদের বিমানবন্দরের ট্রানজিট ডেস্কের সামনে চেয়ারে বসিয়ে রাখা হয়েছে। পানি আর সামান্য খাবার ছাড়া কিছুই সরবরাহ করেনি এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষ। থাকার কোনো জায়গা দেয়নি। মানবেতর অবস্থায় রয়েছি আম'রা।’

মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘আমাদের কী' করবেন, জানতে চাইলে কাতার এয়ারওয়েজ ইন্দোনেশিয়ায় যাওয়ার অফার করে। আমাদের বলা হয়, ইন্দোনেশিয়ায় আপনাদের পাঠিয়ে দিতে পারি। জাকার্তা বিমানবন্দরে নামিয়ে দেব। সেখান থেকে আম'রা কী' করব, এর কোনো উত্তরই তারা দেয়নি। দায় এড়াতেই এটা করতে চাইছে তারা।’

রাফিজা আফরোজ জানান, তিনি মেরুদ'ণ্ডের সমস্যায় ভুগছেন। ১৯ ঘণ্টা ধরে চেয়ারে বসে থেকে তিনি খুবই অ'সুস্থ এখন। কিছুই বুঝতে পারছেন না। এখন পর্যন্ত এক মিনিটও ঘুমাতে পারেননি তিনজন।

জানা যায়, কাতার এয়ারওয়েজের কিউআর ৬৩৮ ফ্লাইটটি কাল ওই তিন বাংলাদেশিকে ছাড়াই ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করে রাত ১টা ৫৫ মিনিটে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ায় বাংলাদেশ সরকার গত শনিবার সন্ধ্যায় যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের সব দেশ থেকে আকাশপথে যাত্রী আসায় নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানান, রোববার রাত ১২টার পর থেকে ১৪ দিনের জন্য যুক্তরাজ্য বাদে ইউরোপের দেশগুলো থেকে বাংলাদেশে ঢোকায় নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। পরে গতকাল সোমবার দুপুর ১২টা থেকে ইউরোপ থেকে আসা যাত্রীদের জন্য বাংলাদেশের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞার পরও গতকাল সোমবার কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে সুইডেন থেকে বাংলাদেশের যাত্রীদের ফ্লাইটে নিয়েছে; যদিও ওই ফ্লাইটের যাত্রীদের দোহায় এনে বসিয়ে রেখেছে কাতার এয়ারওয়েজ।

Back to top button