.

শেষ চিহ্নটুকু সহ বুয়েটে আর কিছুই রইল না আবরারের!

প্রায় দুই বছর আগে বুয়েটের শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর রুমে আবরার উঠে ছিলেন আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন নিয়ে। বুধবার রুমে থাকা আবরারের জিনিসপত্র বুঝিয়ে দেয়া হলো তার বাবা বরকতউল্লাহকে। অবশেষে প্রিয় ক্যাম্পাস থেকে চলে গেল আবরারের শেষ চিহ্নটুকু।

বরকতউল্লাহ বলেন, কয়েকদিন আগেই বুয়েট থেকে আমাকে মোবাইল ফোনে আবরারের জিনিসপত্র নিয়ে যেতে বলেছিলেন। আমি এসে সব জিনিসপত্র বুঝে নিয়েছি। তিনি বলেন, আবরারের শেষ স্মৃ'তি হিসেবে তার ব্যবহৃত এই জিনিসগুলো আম'রা রেখে দেব।

আবরার
আবরারের ফুপাতো বোন আফরিদা পারভীন লিজা বলেন, ছোট ভাই ফাইয়াজের জন্য একটি শার্ট কিনেছিল আবরার। শার্টটি তার রুমেই ছিল। ফাইয়াজ শার্টটি দেখেই কা'ন্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

Back to top button