সুশান্তের শেষ ছবি মুক্তির ঠিক এক দিন আগে কী' লিখলেন অঙ্কিতা?

টানা এক মাস তিনি চুপ ছিলেন। সুশান্তের মৃ'ত্যু নিয়ে যখন সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় তখন মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন অঙ্কিতা লোখন্ডে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেকে দূরে রেখেছিলেন। তাঁর চৌহদ্দিতে প্রবেশের অধিকার ছিল না মিডিয়ারও। ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা গিয়েছিল, অঙ্কিতা ভাল নেই। হোক না সুশান্ত প্রাক্তন, তাঁর এ ভাবে চলে যাওয়াটা কিছুতেই মানতে পারছেন না অঙ্কিতা।

অবশেষে সুশান্তের মৃ'ত্যুর ঠিক এক মাস পর অর্থাৎ গত ১৪ জুলাই মুখ খুলেছিলেন তিনি। বা বলা ভাল, একটি পোস্টেই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর অন্তরের অ'ভিব্যক্তি। আগামিকাল, ২৪ জুলাই হটস্টারে আসছে সুশান্তের শেষ ছবি ‘দিল বেচারা’। আর ছবি মুক্তির ঠিক আগেই আবার একটি পোস্ট করেছেন অঙ্কিতা। যার পরতে পরতে শুধুই সুশান্ত।

যিশুখ্রিস্টের মূর্তির সামনে প্রদীপ জ্বলছে। পেছনে আবছা দেখা যাচ্ছে গণপতির মূর্তি। ক্যাপশনে লেখা, ‘যেখানেই রয়েছ, হাসিখুশি থেকো’। বুঝতে বাকি থাকে না কার কথা বলতে চাইছেন অঙ্কিতা। নাম না করেই তবে কি ভগবানের কাছে সুশান্তের শেষ ছবির জন্য আশীর্বাদ চেয়ে নিলেন অঙ্কিতা?

সুশান্তের শেষকৃত্যের দিন দেখা যায়নি অঙ্কিতাকে। কিন্তু তার পরের দিনই সাদা সালোয়ার পরে, উস্কোখুস্কো চুলে সুশান্তের বান্দ্রার ফ্ল্যাটে পাপারাৎজির ফ্রেমব'ন্দি হয়েছিলেন অঙ্কিতা। সুশান্তের বান্দ্রার ফ্ল্যাটে ঢুকতে গিয়ে পা টলে গিয়েছিল তাঁর। চোখ জুড়ে শূন্যতা, মুখ জুড়ে বিষাদের কালো মেঘ। দু’জনের প্রথম দেখা ২০০৯ সালে। ‘পবিত্র রিস্তা’-র সেটে। রিল লাইফ কাপল ক্রমশ হয়ে গেলের রিয়েল লাইফ কাপল।

প্রকাশ্যে দু’জনেই স্বীকার করে নিলেন, ‘ভালবাসি’। প্রায় সাত বছর স'ম্পর্কে ছিলেন তাঁরা। দুই বাড়ি থেকেই জানত। বিয়ে করারও কথা ছিল। কিন্তু আচ'মকাই তাঁরা জানান, ব্রেকআপ হয়ে গিয়েছে তাঁদের… একসঙ্গে নেই তাঁরা। ফ্যানেদের মন খা'রাপ হয়ে গিয়েছিল শুনে। ঠিক কী' কারণে যে ব্রেকআপ হয়েছিল তা আজও অজানা… কেউ বলেন সুশান্তের উচ্চাকাঙ্খা, কেউ বলেন সুশান্তের জীবনে কৃতির এন্ট্রি। তবে প্রকাশ্যে এ নিয়ে কোনও দিনও কেউ মুখ খোলেননি অঙ্কিতা।

Back to top button
You cannot copy content of this page