মেলেনি অক্সিজেন? ‘নিঃশ্বা'স নিতে পারছি না, চিরবিদায়’, মৃ'ত্যুর আগে বাবাকে বার্তা হায়দরাবাদের করো'না রোগীর

করো'নাভাই'রাস আ'ক্রান্তদের চিকিত্সায় গাফিলতির নানা অ'ভিযোগ শোনা যাচ্ছে। এরই মধ্যে একটি ম'র্মা'ন্তিক ভিডিও সামনে এল। তাতে মৃ'ত্যুর ঠিক আগে করো'না আ'ক্রান্ত রোগীর দাবি, কাকুতি-মিনতি করা সত্ত্বেও অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয় তাঁকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাই'রাল হয়েছে ভিডিওটি।

ভিডিওতে হায়দরাবাদের একটি সরকারি হাসপাতা'লের শয্যা থেকে ৩৫ বছরের ওই কোভিড-১৯ আ'ক্রান্তকে পরিবারকে বিদায় জানাতে দেখা গিয়েছে। রবি কুমা'র নামে ওই রোগীকে যখন তাঁর সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ছিল, তখন তাঁকে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দেওয়ার ক্ষেত্রে চিকিত্সা কর্মীদের গাফিলতির কথা বলতে শোনা গিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ভিডিও তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার করেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা ভিডিওতে স্থানীয় ভাষায় রবি কুমা'রকে সম্ভবত তাঁর জীবনের শেষ কথাগু'লি বলতে শোনা গিয়েছে। তিনি বলছেন, আমি নিঃশ্বা'স নিতে পারছি না। আমি ওদের কাতর আর্জি জানিয়েছি। কিন্তু ওরা গত তিন ঘন্টা ধরে অক্সিজেন চালু করেনি। আমি আর নিঃশ্বা'স নিতে পারছি না, ড্যাডি। মনে হচ্ছে, আমা'র হৃদপিন্ড থমকে যাবে। বিদায় ড্যাডি। সবাইকে চিরবিদায়।

বিভিন্ন প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ওই ব্যক্তি সরকারি চেস্ট হাসপাতা'লে ভর্তি হয়েছিলেন। বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ফিরিয়ে দেওয়ার পর তাঁকে ওই হাসপাতা'লে ভর্তি করা হয়েছিল। হাসপাতা'লে তাঁর ভেন্টিলেটর সাপোর্ট সরিয়ে নেওয়া হয় বলে অ'ভিযোগ। এরপরই তিনি এই ভিডিও রেকর্ড করেন। গাফিলতির অ'ভিযোগ প্রকাশ্যে আনতে মৃ'তের পরিবার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছে।

আরও অ'ভিযোগ, রবির করো'না টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসে। সেই রিপোর্ট রবির পরিবারকে তাঁর মৃ'ত্যুর একদিন পর দেওয়া হয়। এর ফলে পরিবারের যে ৩০ জন রবির শেষকৃত্যে সামিল হয়েছিলেন, তাঁদেরও আ'ক্রান্ত হওয়ার আশ'ঙ্কা থাকছে। রবির বাবার অ'ভিযোগ, রবির টেস্ট হয় ২৪ জুন। মৃ'ত্যু হয় ২৬ জুন। কিন্তু টেস্ট রিপোর্ট দেওয়া হয় ২৭ জুন।

Back to top button