স্যামিকে ‘কালু’ বলে সম্বোধন, ইশান্তের বি'রুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষের জো'রাল প্রমাণ

ভা'রতে আইপিএল খেলতে এসে বর্ণবিদ্বেষের শিকার হয়েছেন! এমনই বি'স্ফো'রক অ'ভিযোগ তুলে শিরোনামে উঠে এসেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সাবেক অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। কিন্তু কে বা কারা তাকে কটাক্ষ করতেন, তা স্পষ্ট করে বলেননি। শুধু দর্শকদের মধ্যে থেকেই বর্ণবিদ্বেষমূলক মন্তব্য উড়ে আসত না, বরং তার সতীর্থরাই গায়েং রং নিয়ে কটাক্ষ করতেন। সে কথাও বলেছেন তিনি। সতীর্থদের বি'রুদ্ধে তোপ দেগে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও-ও পোস্ট করেছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক।

কিন্তু সানরাইজার্স হায়দরাবাদের এক সতীর্থের ইনস্টাগ্রাম পোস্ট ফের ভাই'রাল হতেই বর্ণবিদ্বেষের পোক্ত প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। তিনি আরও কেউ নন, ভা'রতীয় দলের অ'ভিজ্ঞ ফাস্ট বোলার ইশান্ত শর্মা। তার সেই পুরনো ইনস্টাগ্রাম পোস্টে স্যামিকে ‘কালু’ বলে সম্বোধন করেছেন তিনি।

২০১৪ সাল। তখন সানরাইজার্সের হয়ে খেলতেন স্যামি, ইশান্তরা। এই বছরই ১৪ মে ইশান্ত শর্মা'র একটি পুরনো ইনস্টাগ্রাম পোস্ট নিয়েই যত বিতর্ক। সেখানে তিনি একটি ছবি পোস্ট করেছেন। তাতে তিনি ছাড়াও রয়েছেন ভা'রতীয় সতীর্থ ভুবনেশ্বর কুমা'র, ড্যারেন স্যামি এবং ডেল স্টেইন।

সেই ছবির ক্যাপশনে ইশান্ত লিখছেন, ‘আমি, ভুবি, কালু এবং গান সানরাইজার্স!’ স্যামির প্রতি বর্ণবিদ্বেষের অ'ভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াতেই ইশান্তের পুরনো পোস্ট ফের ভাসিয়ে তুলেছেন অনুরাগীরা। ইশান্তের কৃতকর্মের জন্য অনেকেই তাকে পোস্টটি ডিলিট করে স্যামির কাছে ক্ষমা চাইতে বলেছেন। তবে এখনো এই ঘটনায় ইশান্ত বা সানরাইজার্স টিমের বাকি ক্রিকেটারদের তরফে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে বিষয়টি বেশ গুরুতর বলে মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। এ ব্যাপারে সরাসরি এখনো কোনো মন্তব্য করেনি বিসিসিআই। স্যামির অ'ভিযোগ নিয়ে অনেকেই কিন্তু ইতিমধ্যে বোর্ডের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

মা'র্কিন মুলুকে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের পু'লিশি নি'র্যাতনে খু'নের ঘটনায় উত্তাল হয়েছে গোটা বিশ্ব। ঘটনার প্রতিবাদে সরব ক্রীড়াদুনিয়া। কৃষ্ণাঙ্গ হ'ত্যার নিন্দা করতে গিয়ে ক্যারিবিয়ান তারকা ক্রিস গেইল জানিয়েছিলেন, শুধু ফুটবলারই নয়, ক্রিকেটারদেরও বর্ণবৈষম্যের শিকার হতে হয়। অসহনীয় অ'ভিজ্ঞতার কথা প্রকাশ্যে আনেন সাবেক ভা'রতীয় ক্রিকেটার ডোড্ডা গণেশও। জানিয়েছিলেন, গায়ের রঙের জন্য কটাক্ষের শিকার হতে হয়েছে তাকেও।

সত্যিটা জানার পর ক্ষোভ উগরে দেন স্যামিও। জানিয়েছিলেন, ২০১৩-১৪ সালে আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলার সময় বর্ণবিদ্বেষের শিকার হন। তিনি একা নয়, শ্রীলঙ্কান তারকা থিসারা পেরেরাকেও কটাক্ষ করা হতো। ‘কালু’ বলে সম্বোধন করা হত তাঁদের। হিন্দি ভাষায় কটাক্ষ করায় সেই শব্দের সঠিক মানে বুঝতে পারতেন না তাঁরা। তবে দিন তিনক আগে এর অর্থ জানতে পারার পরই রেগে যান স্যামি। এবার তিনি একটি ভিডিও পোস্ট করে নিজের অ'ভিযোগ আরো জো'রাল করলেন।
সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন

Back to top button